হলি বাস্কেটের বিশুদ্ধ মধু

খাটি মধুর কিছু বৈশিষ্ট্য

মধুর অনেক বৈশিষ্ট্য আছে। তবে খাঁটি মধুর কিছু বিশেষ বৈশিষ্ট্য হলো-

  1. খাঁটি মধুতে কখনো কোন কটু গন্ধ থাকে না।
  2. সব থেকে মজার কথা হল মানুষের স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকারক কোনো বিষাক্ত উপাদান প্রাকৃতিক গাছে থাকলেও তার কোন প্রভাব মধুতে থাকে না।
  3. মধু সংরক্ষণে কোনো প্রকার পৃজারভেটিভ জাতীয় উপাদান ব্যবহৃত হয় না। কারণ মধু নিজেই পৃজারভেটিভ গুনাগুণ সম্পন্ন পুষ্টিতে ভরপুর একটি খাদ্য।
  4. খাঁটি মধু উত্‍পাদন, নিষ্কাশন, সংরক্ষণ, প্রক্রিয়াজাত ও বোতলজাতকরণের সময় অন্য কোনো প্রকার পদার্থের সংমিশ্রণ প্রয়োজন হয় না।
  5. আপনি খাঁটি মধু পরীক্ষা করতে চাইলে একটা কাজ করতে পারেন। আপনি খাঁটি মধু পানির গ্লাসে ড্রপ আকারে ছেড়ে দিন খাঁটি মধু হবে ড্রপ অবস্থায়ই গ্লাসের নিচে চলে যাবে।

৫ নং পোস্ট [সব লেখা একসাথে]

হলি বাস্কেটের বিশুদ্ধ মধু

ওরা এক ঝাঁক যোদ্ধা মৌমাছি। দিনরাত মন্ত্রমুগ্ধের মতো মানুষের খেদমত করছে। ওদের প্রস্তুতকৃত মধু আমরা সংগ্রহ করছি কিন্তু ওদেরকে কোন পারিশ্রমিক দিচ্ছি না! ওদের জমানো মধু ছিনতাই করে আমরা ওদেরকে অসহায় করে দিচ্ছি! ওরা হয়তো কোন বদদোয়া দিচ্ছে না বা মহান আল্লাহ কোন গোনাহও লিখছে না! কোরআনে বর্ণিত পবিত্র এই প্রাণিটির কাছে আমরা সত্যিই কৃতজ্ঞ! ওরা মধুতে ভেজাল না মেশালেও মানুষরুপী কিছু অমানুষ মধুকে কলুষিত করছে। তাদের কে ধিক্! বিশুদ্ধ মধু সংগ্রহ ও সরবরাহ করতে হলি বাস্কেট প্রাণান্তকর চেষ্টা করছে! বিশুদ্ধ মধু মানেই মৌমাছির পায়ের অনাবিল পরশ! মৌয়ালীদের আত্মার প্রশান্তি! আর ঐতিহ্যগতভাবে বিক্রেতাদের সাথে ক্রেতাদের অপূর্ব সেতু বন্ধন!

করোনাকালীন সময়ে মধুর ব্যাপক চাহিদা থাকায় স্টক থাকতে আপনি আজই অর্ডার দিয়ে রাখুন! আর হলি বাস্কেটের একঝাঁক তরুণ ঢাকা শহরে পৌঁছে দিবে আপনার সুবাশিত আঙিনায়। দেশের যে কোন স্থান থেকে কুরিয়ারেও পেতে পারেন বিশুদ্ধ এই পণ্যটি!

মিঠাই মধু : হজরত আয়েশা (রা.) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, ‘রাসূলুল্লাহ (সা.) মিষ্টান্ন মধু পছন্দ করতেন।’(বুখারি, ৫১১৫; মুসলিম, ২৬৯৫)। বুখারি শরিফের আরেকটি হাদিসে রাসূল (সা.) বলেছেন, ‘মধু হলো উত্তম ওষুধ।’ (৫৩৫৯)

মধু মানুষের জন্য আল্লাহ প্রদত্ত এক অপূর্ব নেয়ামত। স্বাস্থ্য সুরক্ষা এবং যাবতীয় রোগ নিরাময়ে মধুর গুণ অপরিসীম। রাসূলুল্লাহ (সা.) একে ‘খাইরুদ্দাওয়া’ বা মহৌষধ বলেছেন। আয়ুর্বেদ এবং ইউনানি চিকিৎসা শাস্ত্রেও মধুকে বলা হয় মহৌষধ। এটা যেমন বলকারক, সুস্বাদু ও উত্তম উপাদেয় খাদ্যনির্যাস, তেমনি নিরাময়ের ব্যবস্থাপত্রও। আর তাই তো খাদ্য ও ওষুধ এ উভয়বিধ পুষ্টিগুণে সমৃদ্ধ নির্যাসকে প্রাচীনকাল থেকেই পারিবারিকভাবে ‘পুষ্টিকর ও শক্তিবর্ধক’ পানীয় হিসেবে সব দেশের সব পর্যায়ের মানুষ অত্যন্ত আগ্রহ সহকারে ব্যবহার করে আসছে।

মধুর মূল্য তালিকা

1.    Mustard Flower Honey [সরিষা ফুলের বিশুদ্ধ মধু]

1.     1kg – Tk.600

2.     500g – Tk. 335

3.     250g – Tk.175

4.     150g – Tk.105

 

2.    Litchi Flower Honey [লিচু ফুলের বিশুদ্ধ মধু]

1.     1kg – Tk.800

2.     500g – Tk.425

3.     250g – Tk.220

4.     150g – Tk.130

 

3.    Khalisa Flower Honey [Sundarban/forest honey] [সুন্দরবনের খলিশা ফুলের বিশুদ্ধ মধু]

1.     1kg – Tk.1200

2.     500g – Tk.630

3.     250g – Tk.320

4.    150g – Tk.195

4.    Garan Flower Honey [Sundarban/forest honey] [সুন্দরবনের গরান ফুলের বিশুদ্ধ মধু]

1.     1kg – Tk.1200

2.     500g – Tk.630

3.    250g – Tk.320

4.    150g – Tk.195

 

5.    Kalozira Flower Honey [Shariatpur, Madaripur and Faridpur] [কালোজিরা ফুলের বিশুদ্ধ মধু]

1.     1kg – Tk.1250

2.     500g – Tk.650

3.     250g – Tk.340

4.     150g – Tk.200

 

 

 

মধুর কিছু অসাধারণ উপকারিতা

  1. তারুণ্য ধরে রাখেমধুতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট। এই উপাদানটি ত্বকের রং ও টানটান ভাব ধরে রাখে।
  2. ওজন কমাতে মধু মধু ওজন কমাতে সাহায্য করে। প্রতিদিন সকালে খালিপেটে এক গ্লাস হালকা গরম পানির সাথে এক চামচ মধু মিশিয়ে খেলে হজমশক্তি বাড়ে, এর ফলে খাবারের ক্যালোরি ক্ষয় হয়ে যায় আর ওজনও দ্রুত কমে।
  3. সর্দি কাশি কমাতে সর্দি কাশি ঠাণ্ডা লাগা কমাতে ছোট-বড় সকলের নিয়মিত মধু খাওয়া উচিত।
  4. ত্বককে সারিয়ে তোলেমধুতে বিভিন্ন ছত্রাক-বিরোধী উপাদান রয়েছে। যা ত্বকের ফাঙ্গাস ও অন্যান্য কারণে ক্ষতিগ্রস্ত ত্বককে ঠিক করে ও নতুন ত্বক গঠনে শক্তিশালী ভূমিকা রাখে। এই কারণে শরীরের কোথাও ফাঙ্গাস হলে আক্রান্ত স্থানে নিয়মিত মধু লাগালে উপকার পাওয়া যাবে।
  5. বুদ্ধি বাড়ায় মধু খেলে যে শুধুমাত্র শারীরিক শক্তি বাড়ে, তা নয়। ঘুমানোর আগে এক চামচ মধু খাওয়া খুবই ভালো, এতে মস্তিষ্ক তার কাজ সঠিকভাবে করতে পারে। এর ফলে মস্তিষ্কের কার্য ক্ষমতা বৃদ্ধি পায় ও বুদ্ধি বাড়ে।
  6. বমিভাব দূর করে অনেক সময় খাবার দেখলে, খাবারের গন্ধ পেলে বা সামান্য খেলে বমি বমি লাগে। এমন সমস্যা হলে খাওয়ার আগে একটু মধু খেলে আর বমি আসে না।
  7. অনিদ্রা দূর করেঅনিদ্রার একটি ভালো ওষুধ হল মধু। রাতে নিয়মিত মধু খেলে ভালো ঘুম হয়, অনিদ্রার সমস্যা কেটে যায়।
  8. কোষ্ঠকাঠিন্য সারিয়ে তোলেকোষ্ঠকাঠিন্য একটি মারাত্নক সমস্যা। কোষ্ঠকাঠিন্য নিরাময়ে সাহায্য করে ভিটামিন বি-কমপ্লেক্স, আর মধুতে যথেষ্ট পরিমাণে ভিটামিন বি-কমপ্লেক্স রয়েছে। তাই মধু কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করতে সহায়তা করে।
  9. ডায়রিয়ামধু ডায়রিয়া প্রতিরোধ করতে সাহায্য করে। তাই যাঁদের আমাশা, ডায়রিয়া বা পেট খারাপের প্রবণতা আছে তাঁরা নিয়মিত মধু সেবন করতে পারেন।
  10. হজমের সমস্যা মধুর মধ্যে থাকা উপাদানগুলি হজম শক্তি বাড়াতে সাহায্য করে। ফলে খাবার খাওয়ার পর বদ হজম, গলা বুক জ্বালা ইত্যাদি সমস্যা দূর হয়।
  11. পাকস্থলীরসুস্থতায়মধু খেলে পাকস্থলীর কাজ জোরালো হয়। কারণ এটি হজমে সাহায্য করে। এর ব্যবহার হাইড্রোক্লোরিক অ্যসিড ক্ষরণ কমিয়ে দেয়। তার ফলে পাকস্থলীর কাজ ভালো হয়।
  12. হৃদরোগেএটা হৃদপেশিকে সুস্থ সবল করে এবং এর কার্যক্ষমতা বৃদ্ধি করে। ফলে আয়ু বৃদ্ধি পায়।
  13. রক্ত ও রক্তনালী পরিষ্কার মধু নিয়মিত খেলে রক্তনালীর বিভিন্ন সমস্যা দূর হয়। অর্থাৎ রক্তনালী পরিষ্কার থাকে। সেখানে দূষিত কোনো পদার্থ যা স্বাস্থ্যহানির কারণ তা জমতে পারে না। ফলে হৃদরোগের ঝুঁকি কমে যায়।
  14. কোলেস্টেরলের ক্ষেত্রেমধু রক্তের খারাপ কোলেস্টেরলের পরিমাণ ১০% পর্যন্ত কমিয়ে দেয়। রক্তে খারাপ কোলেস্টেরলের মাত্রা কমার অর্থ হল হার্ট অ্যাটাকের আশঙ্কা অনেকাংশে কমে যাওয়া।
  15. দুর্বলতা দূর করতে অনেকেই সারাক্ষণ ঝিমুনি বা দুর্বল অনুভব করেন। এই ঝিমুনি, ঘুম ঘুম বা দুর্বল ভাব কাটানোর জন্য ও সারাক্ষণ তরতাজা থাকতে নিয়মিত মধু খেতে হবে।
  16. হাড় ও দাঁতের গঠনেমধুর মধ্যে রয়েছে গুরুত্বপূর্ণ উপাদান ক্যালসিয়াম। এই ক্যালসিয়াম দাঁত, হাড়, চুলের গোড়া শক্ত রাখে, নখের ঔজ্জ্বল্য বৃদ্ধি করে, ভেঙে যাওয়া রোধ করে।
  17. দাঁতের যত্নে মুখগহ্বরের স্বাস্থ্য রক্ষায় মধু ব্যবহার করা হয়। অর্থাৎ এটি দাঁতের জন্য খুবই ভালো। দাঁতের ক্ষয়রোধ করতে পারে মধু। অনেক সময়ই দাঁতে স্টোন হয় অর্থাৎ যাকে দাঁতে পাথর জমা বলে, সেই দাঁতে পাথর জমাট বাঁধা রোধ করে মধু। তা ছাড়াও দাঁত পড়ে যাওয়া আটকাতে বা তা বিলম্বিত করতে সাহায্য করে মধু। সঙ্গে দাঁতের মাড়ির স্বাস্থ্য রক্ষা করে।
  18. মুখের ঘায়ে অনেক সময়ই ভিটামিনের অভাবে মুখের ভেতরে ঘা হয়। অথবা দাঁতের মাড়িতে প্রদাহ সৃষ্টি হয়। সে ক্ষেত্রে মধু জলে কুলি করলে উপকার মেলে।
  19. দৃষ্টি শক্তি বাড়াতেচোখের জন্য খুবই ভালো মধু। দৃষ্টি শক্তি বাড়াতে সাহায্য করে এই মধু।
  20. রূপচর্চায়ত্বক টানটান চকচকে করতে মধু একটি বিশেষ উপকারী উপাদান হিসাবে বিবেচ্য হয়।
  21. চুলের স্বাস্থ্যে শুধু ত্বক নয়। সৌন্দর্য বিদ্যায় চুলের বিশেষ যত্নেও মধুর উপকারিতার কথা বলা হয়। তাই চুলের যত্নেও ব্যবহার করা হয় মধু।

খাটি মধুর কিছু বৈশিষ্ট্য

মধুর অনেক বৈশিষ্ট্য আছে। তবে খাঁটি মধুর কিছু বিশেষ বৈশিষ্ট্য হলো-

  1. খাঁটি মধুতে কখনো কোন কটু গন্ধ থাকে না।
  2. সব থেকে মজার কথা হল মানুষের স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকারক কোনো বিষাক্ত উপাদান প্রাকৃতিক গাছে থাকলেও তার কোন প্রভাব মধুতে থাকে না।
  3. মধু সংরক্ষণে কোনো প্রকার পৃজারভেটিভ জাতীয় উপাদান ব্যবহৃত হয় না। কারণ মধু নিজেই পৃজারভেটিভ গুনাগুণ সম্পন্ন পুষ্টিতে ভরপুর একটি খাদ্য।
  4. খাঁটি মধু উত্‍পাদন, নিষ্কাশন, সংরক্ষণ, প্রক্রিয়াজাত ও বোতলজাতকরণের সময় অন্য কোনো প্রকার পদার্থের সংমিশ্রণ প্রয়োজন হয় না।
  5. আপনি খাঁটি মধু পরীক্ষা করতে চাইলে একটা কাজ করতে পারেন। আপনি খাঁটি মধু পানির গ্লাসে ড্রপ আকারে ছেড়ে দিন খাঁটি মধু হবে ড্রপ অবস্থায়ই গ্লাসের নিচে চলে যাবে।

ঠিকানাঃ ক-৮ (২য় তলা), বসুন্ধরা আবাসিক এলাকা (মেইন গেট), আইনউদ্দীন মুন্সি রোড, ভাটারা, ঢাকা।

 

Cell: +88-01709-993199; +88-01709-993196; +88 01711 585621; +88 01818 643870

Web: www.facebook.com/holybasketbd

Gmail: oliverealestatebd@gmail.com

(Visited 11 times, 1 visits today)

Leave A Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *